বিদ্যাসাগরের আলোচনায় চাঁদের হাট বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ে

সুসমন দন্ডপাট / মেদিনীপুর :
সারা রাজ্য জুড়েই বিদ্যাসাগরকে সামনে রেখে সরকার সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দিয়েছে যে সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেন বিদ্যাসাগরের জন্ম দ্বিশত বর্ষ পালন করা হয় । সেই কর্মসূচীকে সামনে রেখে   বিদ্যাসাগরের ২০০ তম জন্ম দিবসে তাঁকে বিশেষ ভাবে শ্রদ্ধা জানাতে  বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ে সেমিনারের  অনুষ্ঠিত হয়। এক ঝাঁক নামী ব্যাক্তি উপস্থিত সহকারে সভায় আজকের সমাজে বিদ্যাসাগরের কর্মকান্ডের প্রাসঙ্গিকতা নিয়ে আলোচনা শুরু হয় ।আলোচক হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ডায়মন্ডহারবার মহিলা বিশ্ববিদ্যালয়, কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়, সিধু- কানহো বিশ্ববিদ্যালয়, কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয় , রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মহাশয়েরা ও  বিশিষ্ঠ কবি সুবোধ সরকার , কলকাতায় অবস্থিত বাংলাদেশের ডেপুটি হাই কমিশনার তৌফিক হাসান , যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ওমপ্রকাশ মিশ্র। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর রঞ্জন চক্রবর্তী ,  বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই বিভাগের ডিন প্রফেসর শিবাজী প্রতীম বসু ও প্রফেসর সুব্রত কুমার দে , বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার  জয়ন্ত কিশোর নন্দী প্রভৃতি গুণীজনেরা। অনুষ্ঠানের সূচনায় সভাপতিত্ব করেন বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য রঞ্জন চক্রবর্তী মহাশয় । সবাই বিদ্যাসাগরের নানান মহান কৃতকর্ম ও তাঁর জীবনের অনেক স্মরণীয় ঘটনার পুনরালোকন করেন । প্রায় সকলের বক্তৃতাতেই  ধ্বনিত হয় নারী জাগরণের প্রেক্ষাপট সম্পর্কে। কবি সুবোধ সরকার এ প্রসঙ্গে বলেন " বিদ্যাসাগর আজকের এই নারী জাগরণ কে দেখতে চেয়েছিলেন ।  আজকে যে হলের অধিকাংশ জুড়ে ছাত্রীরা আছে তার সবচেয়ে বড় কারণ বিদ্যাসাগর ।" আবার এ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে রাজ্য সরকারের জন্ম দ্বিশত বর্ষকে পাথেয় করে এই বিদ্যাসাগরের জন্মস্থানে এই অনুষ্ঠানিকতারও প্রশংসা করেন ।
এদিনের সভায় বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব প্রকাশনী কর্তৃক প্রকাশিত 'বিদ্যাসাগর রচনাবলী'র দ্বিতীয় খন্ডটি প্রকাশিত হয় । এছাড়াও এদিন বিদ্যাসাগরকে নিয়ে যারা গবেষণা করেছেন কিংবা বিদ্যাসাগরের প্রচেষ্ঠাকে পরোক্ষভাবে যারা আজকের সমাজে  এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন এমন চারজনকে 'বিদ্যাসাগর' পুরস্কারে ভূষিত করা হয় । ওনার হলেন বাংলাদেশের প্রাক্তন সড়ক ও যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন , বিশিষ্ঠ গবেষক হরিপদ মণ্ডল , ড. চিত্তব্রত পালিত , নৃসিংহপ্রসাদ ভাদুড়ি  ও বিদ্যাসাগরের শেষ জীবনের বাসস্থান কর্মাটারের বিদ্যাসাগর স্মৃতি রক্ষা কমিটির সভাপতি ও চিকিত্সক ডা. দিলীপ কুমার সিনহা মহাশয় । এদিনের আলোচনা সভা থেকে বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয় তাঁর বিদ্যাসাগর গবেষণা কেন্দ্র থেকে বিদ্যাসাগরকে নিয়ে আরও উচ্চ মানের গবেষণার প্রতিশ্রুতি নিয়ে আলোচনা সভার সমাপ্তি ঘোষিত হয় ।

Post a Comment

0 Comments